অন্তরা চৌধুরী-শ্রাবণ

Posted: September 17, 2014 in আশ্বিন ১৪২১, ওয়েবজিন, গল্প, চিঠি পত্র

 

antora

 

শ্রাবণ 

কেমন আছো অরণ্য?

আজ তোমার কথা খুব মনে পড়ছে। এখানে এখন গভীর রাত্রি। বৃষ্টি ভেজা রাত। আমি জানালার সামনে দাঁড়িয়ে আছি। অঝোরে শ্রাবনের ধারা ঝরছে নারকেল গাছের পাতা বেয়ে। চাঁদটা মেঘের আড়ালে লুকিয়ে আছে। তোমার মনে আছে, যেদিন বৃষ্টির মধ্যে আমি অঝোরে কাঁদছিলাম, চেয়েছিলাম তোমার চোখে সেই কান্নাকে আড়াল করতে, সেদিন তুমিও আমার সাথে বৃষ্টিতে ভিজে আমার চোখের জল মুছিয়ে দিয়েছিলে। বৃষ্টির জল আর চোখের জলের পার্থক্যটা সেদিন তুমিই বুঝেছিলে।

     আমি চেয়েছিলাম তোমার বুকে মুখ ঢেকে কিছুক্ষন কাঁদতে, কিন্তু তোমার নিজেরই যে এত কান্না আছে তা বুঝিনি। একটা ছোট্ট বাড়ি, কাঁচের জানালায় সাদা পর্দা ঝোলানো। স্বপনের মত সাজানো সে বাড়ি। সন্ধ্যের গুঁড়ো ঠাণ্ডা হাওয়া এসে সিক্ত করছিল তোমাকে আমাকে। আলো আবছায়ায় ভরা ঘরের কোন। তুমি আমার কোলে মাথা রেখে নিশ্চিন্তে শুয়েছিলে। আমি তোমার মাথায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছিলাম পরম মমতায়। দূর থেকে শাঁখের আওয়াজ ভেসে আসছিল। তুমি তো বলেছিলে তুমি আমায় চাঁদের আলোয় দেখতে চাওনা, তারার আলোয় দেখতে চাও। কিন্তু আমার ছায়াপথ হারিয়ে গেছে। আমি যে তোমার সব যন্ত্রনার চিহ্ন মুছিয়ে দিতে চেয়েছিলাম অরণ্য। তোমার স্নিগ্ধ আদরে উপেক্ষা করতে চেয়েছিলাম আমার সমস্ত কষ্টকে।

           আজ রাত ভোর বৃষ্টিতে তুমি কাছে নেই। স্মৃতি হয়ে শুধু আছ, ছবি হয়ে আমি শুধু রয়ে গেছি। তুমি কি কোনদিনও ছিলে অরণ্য?

                                                                                                                                                                                                                    তোমার গুঞ্জা

Advertisements
Comments
  1. ভালো লাগলো

  2. Atanu says:

    khub bhalo laglo

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s